রোমান্টিক ভালোবাসার গল্প কাহিনী - Romantic Valobashar Golpo Kahini

 রোমান্টিক ভালোবাসার গল্প কাহিনী - Romantic Valobashar Golpo Kahini 


রোমান্টিক ভালোবাসার গল্প কাহিনী - Romantic Valobashar Golpo Kahini


প্রথম দেখা
  -  কিংশুক শেঠ

সরস্বতী পূজো আর কেউ প্রেমে পড়েনি এমনটা বোধহয় হয়না | বাঙালীর ভ্যালেন্টাইন বলে কথা | তেমনি একটি ছোট্ট মিষ্টি প্রেমের গল্প, যা হয়তো আমাদের সবার পরিচত |

ধড়মড়িয়ে বিছানা ছেড়ে উঠলো ঋতম | সূর্যের আলোয় গোটা ঘরটা আলোকিত হয়ে উঠেছে | ঘড়িতে তাকিয়ে দেখলো আটটা বাজে | ইশশ অনেকটা বেলা হয়ে গেল | আজ সরস্বতী পূজো | ভেবেছিল সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠবে | তা আর হলো কই ! কাল অনেক রাত পর্যন্ত পাড়ার পূজোর প্যান্ডেলের তদারকি করতে হয়েছে | সকালে ওঠবার জন্য ঘড়িতে সাড়ে ছয়টায় অ্যালার্ম দিয়ে রেখেছিলো | কিন্তু ঘুমের ঘোরে কখন যে সেটা বন্ধ করে দিয়েছে, তা আর মনে পড়ছে না | হাতে একদম সময় নেই |

সেরা ভালোবাসার গল্প


বিছানা থেকে বেরিয়ে বাথরুমে যাবার জন্য দরজা ঠেলতেই বুঝতেই পারলো দরজা ভিতর থেকে বন্ধ | ভিতর থেকে গুনগুন করে গান ভেসে আসছে | তার মানে ভিতরে দিদিভাই স্নান করছে | মানে আধঘণ্টা আগে বেরোবে না | ডেকেও কোন লাভ নেই |

আজকেই এমন দেরী হতে হলো | কতদিন ধরে কতকিছু ভেবে রেখেছিলো | পুরোটাই মাটি হবে মনে হচ্ছে | রণিতা বোধহয় এতক্ষণে পুষ্পাঞ্জলি দিতে চলে এসেছে | না হাল ছাড়লে চলবে না | একটা চেষ্টা করে দেখতে হবে |

দাঁত ব্রাশ করে দ্রুত স্নান করার জন্য বাইরের কলতলার দিকে অগ্রসর হল সে |
সুজাতা পাউরুটিতে মাখন লাগাতে লাগাতে ছেলের কার্যকলাপ লক্ষ্য করছিলো |
- কিরে ওদিকে কোথায় যাচ্ছিস? 
- কলতলায়...স্নান করতে |
- একটু অপেক্ষা কর | দিদিভাই বেরোলে স্নান করিস |
- না মা... দেরী হয়ে গেছে |
- দাঁড়া, একটু গরম জল বসিয়ে দিই | ঠান্ডা জলে স্নান করিস না | ঠান্ডা লেগে যাবে |
- মা আজকে সরস্বতী পূজো | ঠান্ডা জলে স্নান করলে কিছু হবে না | তুমিই তো বসন্ত পঞ্চমী তে সকালে স্নান করলে শ্রী ফেরে |
সুজাতা মনে মনে বেশ অবাক হলেন | যে ছেলে জীবনে শীতকালে কোনদিন গরম জল ছাড়া স্নান করে না, সে হঠাৎ ঠান্ডা জলে স্নান করছে | তিনি কোনো কারণ খুঁজে পেলেন না |
- এত তাড়াহুড়ো করছিস কেনো বলতো? 
- মা, পুষ্পাঞ্জলী শেষ হয়ে যাবে তো?
- তুইতো লাইব্রেরীতে যাবি পুষ্পাঞ্জলী দিতে | ওখানে তো দশটা পর্যন্ত পুষ্পাঞ্জলী হবে | আমি গতকালই জেনে এসেছি | সবে তো আটটা বাজে |
ঋতম আর কথা না বাড়িয়ে স্নান করার জন্য অগ্রসর হলো |

*****************************

লাইব্রেরীতে এসে ঋতম দেখলো থিক থিক করছে ভিড় | তার চোখদুটো কোন এক জায়গায় আবদ্ধ নেই | চারিদিকে যেন কাউকে খুঁজছে | বেশ কিছুক্ষণ দেখার পরে বেশ হতাশ হলো | সায়কের ঠেলায় সম্বিৎ ফিরে পেল সে |
- কিরে দাঁড়িয়ে পড়লি কেন? কাকে খুঁজছিস? 
- নারে কেউ নয় |
- কেউ নয় বললে হবে ভাই | আজ বাঙালির ভ্যালেন্টাইন বলে কথা | আসেপাশে এত সুন্দরীরা ঘুরে বেড়াচ্ছে... আর তুই বলছিস কেউ নয় |
সায়কের কথায় ঋতম বেশ একটু লজ্জা পেয়ে গেল | ওর হাতটা টেনে নিয়ে বলল, চল এখন | পুষ্পাঞ্জলি দিতে দেরী হয়ে যাচ্ছে |


রোমান্টিক ভালোবাসার ছোট গল্প


********************

কলেজে যাবার পথে বাইকটা বামাসুন্দরী বালিকা বিদ্যালয়ের সামনে দাঁড় করলো ঋতম | পিছন থেকে সায়ক বলল, কিরে এখানে দাঁড় করালি কেন?
- চল ঠাকুরটা দেখে আসি |
- তোর কেসটা কি বলতো | নিশ্চয়ই কোন মামনির প্রেমে পড়েছিস |
- কি সব বলছিস? 
- সব বুঝেছি ভাই | আর আমাকে বোঝাতে হবে না | সকাল থেকে তো একেই খুঁজে বেড়াচ্ছিস |
- আসলে আমরা আগে থেকে চিনি একে অন্যকে |
- কি বলছিস ভাই ! এতদিন ধরে কথা বলছিস,  আর আমাকে তো আগে বলিসনি |
- কয়েকমাস আগে ফেসবুকে আলাপ | টুকটাক চ্যাট হয়েছে | আজই সামনাসামনি প্রথমবার দেখা করছি |
সায়ক ঋতমকে ভালো করে চেনে |  ছোটবেলার বন্ধু | ঋতমের চোখমুখ দেখে ভালোই বুঝতে পেরেছে এই সম্পর্কের ব্যাপারে সে কতটা সিরিয়াস |
ঋতম বাইকটা রাস্তার একধারে দাঁড় করিয়ে গেট পেরিয়ে স্কুলের ভেতরে ঢুকলো | সায়কও তাকে অনুসরণ করলো |

সরস্বতী ঠাকুরকে প্রণাম জানিয়ে ঘুরতেই ঋতমের চোখে পড়লো রণিতা ওর বন্ধুদের সঙ্গে কথা বলছে | 

রণিতার সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়ায় ঋতমের বন্ধুত্ব প্রায় ছয় মাসের | এতো কাছাকাছি থাকলেও কোনদিন কেউ কারোর সঙ্গে দেখা করেনি | ঠিক হয়েছিল আজ সকালে পুষ্পাঞ্জলির সময়ে দুজনে লাইব্রেরিতে দেখা করবে | ঋতমের দেরীর কারণে সেটা আর হয়নি | ও জানতো রণিতা এই স্কুলে পড়ে | তাই একটা চেষ্টা করলো দেখা করার |


আরো পড়ুন, Valobashar Golpo 2020

শাড়িতে রণিতাকে আজ দারুন লাগছে | বুদ্ধিদীপ্ত চোখদুটো অসম্ভব সুন্দর | সেইসঙ্গে সর্বদা হাসিমাখানো মুখে দেবীপ্রতিমার মতো লাগছে | পুরো সম্মোহিতের মতো দেখতে থাকলো সে |

রণিতার চোখে পড়তেই এগিয়ে এলো ঋতমের দিকে |
কাছে এসে চাপাগলায় বললো, তুমি এখানে কি করছ? লাইব্রেরীতে এলেনা কেন?  এখানে কথা বলা যাবেনা | কেউ দেখে ফেললে মুশকিল হবে | তুমি স্কুলের পিছনে যাও আমি আসছি |

সায়ককে অপেক্ষা করতে বলে ঋতম একাই স্কুলের পিছনে এলো | আর যেভাবেই হোক রণিতাকে ওর মনের কথা বলতে হবে | এতদিন ধরে ওকে ঘিরে কত স্বপ্নই না বুনেছে |

কিছুক্ষণ পরে রণিতা হন্তদন্ত হয়ে এলো | ভিতরে ভিতরে বেশ উত্তেজিত |
এসেই অনুযোগের সুরে বলল, তুমি লাইব্রেরীতে এলেনা কেন?  জানো আমি তোমার জন্য কতক্ষণ অপেক্ষা করেছি |
- আসলে কাল শুতে দেরী হয়ে গিয়েছিল | তাই সকালে ঘুম থেকে উঠতে পারিনি | প্লিজ, কিছু মনে কোরো না |

- না না ঠিক আছে | তোমার জন্য দুটো জিনিস এনেছি | বলেই ব্যাগ থেকে একটা চকলেট আর গ্রিটিংস কার্ড বের করলো | প্ৰিয় মানুষের হাতে উপহারদুটো তুলে দিতে পেরে কিশোরী রণিতার মুখে তৃপ্তির হাসি |



ঋতম উপহারদুটো হাতে নিয়েই বুঝতে পারল কি ভুল করেছে | রণিতার জন্য তো কোন উপহারই আনা হয়নি | ইশশ...জীবনে এমন অবস্থায় কোনদিন পড়তে হয়নি | কি করবে এখন ! মনে মনে নিজেকেই দোষারোপ দিতে লাগলো |
ঋতমের মুখ দেখে রনিতা বুঝতে পারল কিছু একটা গন্ডগোল হয়েছে | 
- কি হয়েছে? 
- না আসলে তোমার জন্য......
এই ধর....ফুল আর চকলেট | পিছনে ফিরতে ঋতম দেখলো, একগোছা লাল গোলাপ আর চকলেটের বড় প্যাকেট নিয়ে সায়ক দাঁড়িয়ে |
-হাঁ করে দেখছিস কি....ধর | আমাকে আনতে দিয়ে এদিকে চলে এসেছিস | আর আমি চারিদিকে তোকে খুঁজে বেড়াচ্ছি |
ফুল আর চকলেটটা ঋতম নিতেই সায়ক বলল, তুই কথা বল....আমি অপেক্ষা করছি | 
রণিতার মুখ লজ্জায় লাল হয়ে গেছে | সলজ্জ দৃষ্টিতে মাথা নীচু করে দাঁড়িয়ে সে |
ঋতম মনে মনে সায়ককে ধন্যবাদ জানালো | প্ৰিয় বন্ধুই বোধহয় পারে এমনি করে মনের কথা জেনে নিতে |


সায়ক চলে যেতে ঋতম রণিতার হাতে উপহারগুলো তুলে দিল | তখনো রণিতা মাথা নীচু করে দাঁড়িয়ে |
তারপরে রণিতার হাত ধরে নীচু স্বরে বললো, তোমার হাতটা কি এভাবেই সারাজীবন ধরে রাখতে পারি?
ঋতম অনুভব করল রণিতাও ওর হাতটা আরো শক্ত করে ধরেছে | হাত ছাড়ার বিন্দুমাত্র কোন লক্ষণ নেই |
শুধু মুখে বলল, জানিনা যাও |
রণিতার মিষ্টি হাসিতেই ঋতম বুঝে নিয়েছে, তার ভালোবাসা আজ পরিপূর্ণতা লাভ করেছে | বাকী জীবনের সুখ দুঃখের সঙ্গীকে আজ খুঁজে পেয়েছে সে | দেবী মৃন্ময়ীর আশীর্বাদে সমস্ত সংশয় কাটিয়ে  চিন্ময়ীরূপী রণিতাকে নিয়ে আগামীর পথে চলার জন্য সে প্রস্তুত |



প্রিয় গল্প পড়তে নিয়মিত ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইটে। 
ভালো থাকুন, ভালোবাসায় থাকুন। ..
Thank You, Visit Again...

রোমান্টিক ভালোবাসার গল্প কাহিনী - Romantic Valobashar Golpo Kahini রোমান্টিক ভালোবাসার গল্প কাহিনী - Romantic Valobashar Golpo Kahini Reviewed by Bongconnection Original Published on September 09, 2020 Rating: 5

No comments:

Wikipedia

Search results

Powered by Blogger.