বড়দের গল্প - Boroder Golpo (আধুনিকা)

 বড়দের গল্প - Boroder Golpo (আধুনিকা) 



বড়দের গল্প - Boroder Golpo (আধুনিকা)




আধুনিকা
- নীলাব্জ
(প্রাপ্তমনস্কদের জন্য)

অফিসে বেরোনোর সময় রণিত রাখীকে কিছু না বলেই বেরিয়ে গেল।রাখী ব্যাপারটা লক্ষ্য করেও চুপ রইলো।অফিস বেরোনোর সময় এই নিয়ে কথা না বলাই ভালো।আসলে কয়েকদিন ধরেই ওদের সম্পর্কে একটা শীতলতার উদ্ভব ঘটেছে।ছয়মাসের বিবাহিত জীবনের মধ্যে এমন সময় চলে আসবে তা হয়তো কেউ আগে ভাবেনি।রাখী রণিতের ওপর দিন দিন কেমন বীতশ্রদ্ধ হয়ে উঠছে।ছেলে হিসেবে রণিতের তুলনা বড় একটা মেলেনা।সে একটা মাল্টিন্যাশনাল আই.টি কোম্পানিতে কর্মরত।পরের বছর রণিতের আমেরিকা যাওয়া মোটামুটি পাকা।তাই এতো ভালো একটা সম্বন্ধ আসতেই রাখীর বাবা অসিত বাবু রাজী হতে দ্বিধা করেননি।রণিত তার বাবা-মায়ের একমাত্র ছেলে।কলকাতার বালিগঞ্জে বিশাল বাড়ি তাদের।এতো বড় বাড়িতে কোনোদিন মেয়ের বিয়ে দিতে পারবেন এ যেন অসিত বাবুর কল্পনার অতীত ছিল।যদিও রাখী যথেষ্ট ভদ্র,নম্র,শিক্ষিতা ও সুন্দরী একজন মেয়ে।বিয়ের আগে একটা কিন্ডার গার্টেন স্কুলে পড়াতো সে।তার পাশাপাশি স্কুল সার্ভিস পরীক্ষার জন্য তৈরী হচ্ছিল।তবে বিয়ের পর রণিতের কথায় তাকে সেই চাকরি ছাড়তে হয়।রণিত বলেছিল এক বছর পরে তো সেই আমেরিকা যেতে হবে।তাই চাকরি করে কোনো লাভ নেই।তার চেয়ে সে বরং সংসারের কাজকর্ম ভালো করে শিখুক।বিদেশ-বিভুইয়ে কখন কি করতে হয় তার তো ঠিক নেই।সত্যি বলতে বাপের বাড়িতে রাখী আদরের দুলালি হিসেবে বড় হয়েছে।তার মা রিতা দেবী মেয়েকে সমস্ত কাজকর্ম শেখাতে চাইলেও অসিত বাবু বাধ সাধতেন।তিনি বলতেন ওসব কিছু করতে হবে না এখন।পরে দরকার পড়লে সব নিজে নিজে শিখে নেবে।পরিবর্তিত পরিস্থিতির সাথে নিজেকে দ্রুত অভিযোজিত করতে পেরেছিল বলেই না মানুষ আজ সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ জীব।রিতা দেবী তার স্বামীর কথায় খুব রেগে গেলেও মুখে কিছু বলতেন না।অতঃপর রাখী সেরকম কাজকর্ম তেমন কিছুই শেখে নি।

বড়দের রোমান্টিক গল্প


শ্বশুর বাড়ি এসে নতুন পরিবেশে মানিয়ে নিতে তেমন কোনো সমস্যা হয়নি রাখীর।তার শ্বশুর-শাশুড়ি যথেষ্ট ভালো মানুষ।তারা ওর সাথে বৌমা কম নিজেদের মেয়ের মতো ব্যবহার করে।এই কয়েকদিনের মধ্যে রাখী গৃহস্থালির অনেক কাজকর্ম বেশ আয়ত্ত করে ফেলেছে।তবে শ্বশুর বাড়িতে যে মানুষটি ওর সবচেয়ে প্রিয় সে হলো রণিতের ঠাম্মা শিখা দেবী।ভদ্রমহিলার বয়স সত্তর পেরিয়েছে তবে চেহারায় এখনো এক অদ্ভুত সৌন্দর্য ভাব স্পষ্ট ফুটে বেরোয়।শিখা দেবী ওনার বয়সী মহিলাদের থেকে অনেকটা আলাদা মানুষ।তিনি তার সময়কার ইতিহাসে এম.এ পাশ ছাত্রী।কলকাতার নামী একটা গার্লস স্কুলের প্রধান শিক্ষিকার চাকরি করেছেন।নাতবৌয়ের চাকরি ছাড়ানোর ঘটনায় তিনি আপত্তি জানিয়েছিলেন তবে নাতির সিদ্ধান্তের সম্পূর্ণ বিরোধীতা করেননি।শিখা দেবী একজন বিধবা মহিলা তবে অত আচার-বিচার,ধর্মকর্মে মন নেই ওনার।একজন অতি বাস্তববাদী,আধুনিকমনস্কা মহিলা তিনি।রাখী কাজ শেষ করে তার ঘরে গিয়ে তার সাথে সময় কাটায়।এই মানুষটির সাথে সব কিছু যেন খুব সহজে আলোচনা করা যায়।এই মহিলাটির ব্যপ্তি যে বিশাল সে বিষয়ে রাখী নিশ্চিত।মাঝে মাঝে রাখী শিখা দেবীকে বলে-'সব মহিলারা যদি তোমার মতো হত গো ঠাম্মি তাহলে মেয়েদের দুঃখ আরো অনেক ঘুচতো।'
নাতবৌয়ের কথা শুনে শিখা দেবী মুখে কিছু বলেন না।তার ঠোঁটের কোণে এক চিলতে হাসির রেখা ফুটে ওঠে।এই শিখা দেবীও কয়েকদিন ধরে অনুমান করেছেন রাখীর মনের উদ্বেগের কথা।তবে এখনো জিজ্ঞেস করে ওঠেননি।

রাখী আর রণিতের মধ্যে দাম্পত্যে একটা চিড় ধরেছে।রাখী রণিতের থেকে যৌনসুখে পুরোপুরি তৃপ্তি পাচ্ছে না।রণিত রতিক্রিয়ায় বেশীক্ষন টিকে থাকতে অক্ষম।রাখী প্রথম প্রথম কিছু না বললেও দিন যত এগোলো রাখীর মনের অতৃপ্তি একদিন ওর মুখ ফুটে বেরিয়ে এলো।সেদিন রাতে অন্তরঙ্গ মুহুর্ত কাটাবার পর রণিত যখন তার বালিশ খুঁজছে হঠাৎ রাখী বিরক্ত স্বরে বলে ওঠে-'রণিত শুধু নিজেরটুকু নিয়ে তুমি সন্তুষ্ট তাই না।আমার দিকটা তো এবার ভাবো।'
রাখীর হঠাৎ এই কথায় রণিত বেজায় অবাক হয়ে যায়।রাখীর শরীরটা নিয়ে খেলা করে সে অবসন্ন হয়ে পড়েছিল ঠিক তখনই রাখী এই বোমা ফাটালো।রণিত বলে ওঠে-'হোয়াট ডু ইউ ওয়ান্ট টু মিন বাই ইট রাখী?'
-'কেন তুমি বুঝতে পারছ না আমি কি বলছি?'
রাখীর মুখের দিকে কিছুক্ষন নিশ্চুপে তাকিয়ে থেকে রণিত বিরস বদনে বলে-'হ্যাভ ইউ গোন আউট ওফ ইয়োর মাইন্ড?'
-'কেন? আমি ভুল কি বললাম?যৌনসুখে তৃপ্তিলাভ শুধু কি তোমার অধিকার।আমার কোনো চাহিদা থাকতে পারে না?'
রণিত আর কোনো কথা বাড়ায় নি।পাশ ফিরে ঘুমিয়ে পড়ে।রাখীর চোখ দিয়ে অতৃপ্তির জ্বালা জল হয়ে ঝরে পড়ে।রণিত তার খেয়াল রাখে না।শুধুমাত্র রাখীর মাথার নীচে বালিশ তার এই কষ্টের সাক্ষী হয়ে থাকে।

পরেরদিন অফিসে কাজের মধ্যে থেকে রণিত গত রাতের কথা ভুলে যায়।রাতে বিছানায় গিয়ে রাখীর যৌবনাপূর্ণ শরীরকে সে কাছে টেনে নয়।উদ্দাম আদর পাওয়ার আশায় রাখী ফের নিজেকে সঁপে দেয়।কিন্তু কোথায় কি।পূর্বের মতো আবারো কয়েক মুহুর্তের মধ্যে রণিতের পুরুষ রসের স্খলন ঘটে।সে ক্লান্ত শরীরে নিজের বালিশে মাথা এলিয়ে দেয়।রাখীর সমগ্র শরীরে তখনো আগুন জ্বলছে।তার শিরা উপশিরার মধ্যে দিয়ে যৌবনসুধা ছোটাছুটি করছে।স্বামীর ছোয়া,তার সোহাগ পাবার আশায় সে অস্থির।তার নারীত্বের চরম অনুভূতি আনন্দের শিখরে যেতে চাইছে কিন্তু বারেবারে তা পাদদেশে এসে আছাড় খেয়ে পড়ছে।পরদিন সকালে রাখী আবারো সরাসরি কথাটা বলে রণিতকে-'রণিত আমি অর্গ্যাজমে পৌছাতে পারছি না।তুমি এবার আমার কথাও ভাবো প্লিজ।'
রণিত চরম বিরক্ত হয়ে বলে-'তুমি আবারো শুরু করলে।সকাল সকাল এসব নিয়ে কথা বলছো।'
-'আমি আমার স্বামীকে আমার একান্ত ব্যক্তিগত কথা জানাচ্ছি।এখানে সময় দেখে কথা বলার আছে টা কি।আর তাছাড়া এটাও একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।রোজ তুমি তোমার আনন্দ পুরোমাত্রায় অনুভব করছ অথচ আমি কেন বঞ্চিত হব বলো।এই কথা আমি আমার স্বামী ছাড়া আর কাকে বলব?'
-'প্লিজ রাখী, আমার এইসব কথা শুনতে ভালো লাগছে না।চুপ করো এবার।'
রণিতের পুরুষ সিংহকে চরম আঘাত হানে রাখীর এই খেদোক্তি।রণিতের দেহ সুগঠিত ও বলশালী।বহু বছর ধরে জিম করে বানানো মজবুত শরীর তার।অথচ সে কিনা তার স্ত্রীকে যৌনক্রিয়ায় পরম সুখ দিতে অসমর্থ হচ্ছে।এই চরম সত্যি মেনে নেওয়ার উপযুক্ত শক্তি ও সাহস কোনোটাই রণিতের পুরুষ চিত্তের নেই।নিজের শারীরিক খামতি ঢাকতে সে এবার রাখীকে অশ্লীল ভাবে আক্রমণ করে-'তোমার তো দেখছি প্রচুর খিদে।একজনের পক্ষে তোমার শরীরের এই খিদে মেটানো সম্ভব নয় দেখছি।তোমায় দেখে তো তা মনেহয় না।বাইরে তো কোমল,নরম একটা মেয়ের প্রতিমূর্তি ধরে রাখো।তার ভিতরে যে কামনার কুয়ো এতো গভীর তা বোঝার উপায় নেই।'
-'কি বলছো তুমি এসব!তুমি আমার চরিত্রের দিকে আঙুল তুলছো।নিজের অক্ষমতা ঢাকতে আমায় কু-ইঙ্গিত করছো।ছি! ছি!'
কথাটা বলে এক মুহূর্ত আর বসে থাকতে পারে না রাখী।এক ছুটে ঘর থেকে বেরিয়ে যায়।

বড়দের জন্য গল্প


দুপুরে খাওয়া-দাওয়া সেরে রণিত রাখীকে বলে-'দেখো রাখী তোমায় একটা কথা পরিষ্কার জানাই।তুমি যদি আমার সাথে সুখী না থাকো তো আমরা ডিভোর্স করতে পারি।'
রাখীর চেহারায় বিষন্নতা ফুটে ওঠে।রণিতের কথাগুলো বিষাক্ত তীরের মতো তার অন্তরকে ছিন্ন করে দেয়।সে রণিতের দিকে একদৃষ্টে চেয়ে থাকে।রণিত একবার সেই চোখের দিকে তাকিয়ে চোখ নামিয়ে নেয়।রাখীর ঐ প্রখর দৃষ্টির দিকে তাকাতে তার পুরুষ সিংহ বাধ সাধে।সেদিন থেকে রাখী তার শারীরিক চাহিদার কথা গলা টিপে মেরে ফেলে।রণিত ওকে চুপ করে যেতে দেখে পুনরায় রোজ রাতে তার স্ত্রীয়ের শরীরের সুধা পান করতে থাকে।কিন্তু রণিত ধীরে ধীরে এবার লক্ষ্য করে রাখী যৌনক্রিয়ায় কোনো সাড়া দিচ্ছে না।সে যেন একটা পুতুলের সাথে রতি খেলা করছে।আস্তে আস্তে রণিত রাখীকে ছোয়া বন্ধ করে দেয়।একই বিছানায় দুজনের মধ্যে সহস্র ক্রোশ দূরত্ব গড়ে ওঠে।

রিতা দেবী একদিন রণিতদের বাড়িতে আসেন মেয়ের সাথে দেখা করতে।রণিতের মা অপর্ণা ও বাবা শেখর মিত্র তাদের বেয়ানকে সাদরে অভ্যর্থনা জানান।শেখর বাবু বলেন-'আপনি একলা এলেন যে বড়।বেয়াই মশাই কি আসতে চাইলেন না?'
রিতা জানায় হঠাৎ একটা কাজে একটু আটকে পড়ে গিয়ে সে আসতে পারেনি।তাই তিনি একাই এসেছেন।শিখা দেবী রিতাকে প্রশ্ন করে-'এতদিনে আসা হলো তোমার।মেয়েটাকে দেখতে কি ইচ্ছে হয়না বুঝি।'



রিতা বলে-'মাসীমা আপনাদের হাতে মেয়েকে তুলে দিয়ে আমরা দুজনে ভীষন নিশ্চিন্ত।আমি জানি এই বাড়িতে ওর কোনো অযত্ন হবে না।'
কথাটা বলে শিখাকে প্রণাম করে রিতা।রাখী ওদের জন্য চা-জলখাবার করে আনে।রাখীকে দেখে রিতা দেবী বুঝতে পারেন তার মন ভালো নেই।জলখাবার খেয়ে শিখা বলেন-'যাও মা মেয়ের কাছে যাও।শোনোতো নাতবৌয়ের কাছে ওর এখানে কোনো অসুবিধা হচ্ছে কিনা।আমাকে জানিও কেমন।'
শিখার থেকে বিদায় নিয়ে রিতা রাখীর ঘরে আসে।রাখীকে দেখে সে জানতে চায় ওর কি হয়েছে।প্রথমে বলতে না চাইলেও মায়ের বারংবার প্রশ্নের সমুখে মুখ খোলে রাখী।সবকিছু তাকে জানায়।মেয়ের মুখে এইকথা শুনে রিতা দেবী আকাশ থেকে পড়ে।
-'কি আজেবাজে কথা বলছিস তুই এসব!এসব কথা বলতে নেই রাখী।ভুলে যাসনা স্ত্রীর একমাত্র ধর্ম হলো তার স্বামীকে দেখাশোনা করা।তার সমস্ত চাহিদা পূরণ করা।এটাই আমাদের সংস্কৃতি,এটাই আমাদের সংস্কার।তোকে লেখাপড়া শিখিয়েছি কি এসব শোনার জন্য।'
রাখী তার মায়ের কথা শুনে বেজায় হতবাক হয়ে যায়।মায়ের কাছে সহানুভূতি পাবার আশায় কথাগুলো জানিয়েছে সে, কিন্তু পরিবর্তে ওর মা যে ওকে ভুল বুঝছে।রাখীর প্রতিবাদী সত্তা তার মাকে বলে-'আচ্ছ মা স্বামীর কাছে এই আশা করাটা কি পাপ?'
-'আমি অতশত জানিনা রাখী।শুধু এটা জানি স্ত্রীর কর্তব্য তার স্বামীর সেবা করা।'
মায়ের সাথে আর কথা বাড়ায় না রাখী।

এভাবে বেশ কয়েকদিন কেটে যায়।রণিত আর রাখীর বৈবাহিক সম্পর্কে ঠান্ডা স্রোতের অনুপ্রবেশ ঘটেছে।অপর্ণা ও শেখর বাবু ধীরে ধীরে তা বুঝতে পারে।একদিন রাখী রণিতকে খুব শান্তভাবে বলে-'রণিত একটা কথা বলি রাগ করোনা।তুমি একবার ডাক্তারের সাথে কথা বলে দেখোনা।আজকাল তো কতরকম চিকিৎসা বেরিয়েছে।সব সমস্যার সমাধান আছে।'
রাখীর এইকথা রণিতের সহ্যসীমা পার করে যায়।তার পুরুষ চিত্ত এইকথা হজম করতে পারেনা।মুহূর্তের উত্তেজনায় ফেটে পড়ে রণিত।
-'রাখী আমার পক্ষে আর তোমার সাথে থাকা সম্ভব না।তুমি কোন সাহসে এতো বড় কথা বললে আমায়।হাউ ডেয়ার ইউ টু টক মি দিস বুল সিট?'
রাগে উত্তেজনায় কাঁপতে থাকে রণিত।হাতের কাছে রাখা ফোনটা তুলে নিয়ে ডায়াল করে একটা নম্বর।
রাখী প্রশ্ন করে-'কাকে ফোন করছ তুমি?'
রাখীর কথার জবার দেওয়ার পূর্বে ফোনের ওপার থেকে অসিত বাবু বলে-'হ্যাঁ রণিত বলো।কেমন আছো বাবা তোমরা?সব ঠিক আছে তো?'
-'আগামী রবিবার আপনারা একবার আমাদের এখানে আসুন।আমি একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আপনাদের জানাতে চাই।'
-'কি ব্যাপার বাবা?এনিথিং সিরিয়াস?'
-'আসলে জানতে পারবেন।এখন রাখছি আমি।'
কথাটা বলে ফোনটা কেটে দেয় রণিত।রাখী হা করে ওর দিকে চেয়ে থাকে।
-'তুমি বাবাকে ফোন করে দিলে?'
-'হ্যাঁ দিলাম,বিকজ আই ওয়ান্ট এন এন্ড অফ ইট।এনাফ ইজ এনাফ।'
এক মুহুর্তে  রাখীর পৃথিবীটা বেরঙিন হয়ে যেতে থাকে।সে খুব ভালো করে জানে তার বাবা-মা সবাই তাকে ভুল বুঝবে।মা তো কদিন আগেই কত কথা শুনিয়ে গেছে।কেউ তার মনের কথা জানতে চাইবে না।সে তো কোনো দোষ করে নি।শুধুমাত্র নিজের একটা চাহিদার কথা তার স্বামীকে জানিয়েছিল।সেটা যে জীবনে এত বড় আকার ধারণ করবে তা সে ভাবেনি।কি করবে রাখী ভেবে পায়না।একবার ভাবে জীবনটা শেষ করে ফেলবে।কিন্তু সেই সাহস তার নেই।নিজেকে বড্ড একা,অসহায় মনে হয় ওর।কেউ কি বুঝবে না ওর মনের কথা?এই বিশ্বসংসারে এমন কেউ কি নেই যে ওকে বুঝবে?


আরো পড়ুন, চরিত্রহীন

নির্দিষ্ট দিনে রাখীর বাবা-মা এসে হাজির।রণিতদের বাড়ির বসার ঘরে গুরুজনদের নিয়ে গুরুতর আলোচনার সভা বসেছে।রণিত এসে উপস্থিত হয়।তার চেহারায় বিরক্তি ও রাগের ভাব স্পষ্ট।রাখী ঘরের এককোণায় চুপটি করে দাঁড়িয়ে আছে।আজ তার বিচার সভা বসেছে।অভিভাবকদের মধ্যে একটা চাপা উত্তেজনার স্রোত বইছে।শুধু একটি মানুষ নির্লিপ্তভাবে সোফায় গা এলিয়ে বসে আছেন।তিনি হলেন রণিতের ঠাম্মি শিখা দেবী।মনের মধ্যে উত্তেজনা থাকলেও তাকে দেখে বোঝার উপায় নেই।রাখীকে ডেকে নিজের পাশে বসালেন তিনি।অসিত বাবু জিজ্ঞাসা করলেন-'তা কি ব্যাপার একটু খুলে বলোতো।পরিস্থিতি বিচার করে তো মনে হচ্ছে গুরুতর কিছু।'
রিতা দেবী হয়তো খানিকটা আন্দাজ করতে পাচ্ছেন।কয়েকদিন আগে রাখী যেসব কথা তাকে বলেছে এ নিশ্চয়ই তার জের।মনে মনে প্রমাদ গুনছেন তিনি।রণিতের বাবা শেখর এতোক্ষনে মুখ খুলল।তিনি বললেন-'কি বলবি বল।ওনাদের হঠাৎ ডেকে পাঠালি।আমাদেরও অন্ধকারে রেখেছিস।এনিথিং সিরিয়াস?'
রণিত বলল-'অবশ্যই সিরিয়াস ম্যাটার।নাহলে ওনাদের কষ্ট করে আসতে বলতাম না বাবা।'
-'তা কি সেই ম্যাটার শুনি?'
রণিত বলতে শুরু করল-'তোমাদের সকলকে একটা গুরুত্বপূর্ণ কথা জানাই।আমি রাখীর সাথে আর থাকতে পারব না।ঐরকম ঘৃণ্য প্রকৃতির মেয়ের সাথে আমার থাকা অসম্ভব।'
ঘরের মধ্যে যেন ব্রজ্যপাত ঘটল রণিতের বিস্ফারিত এই মন্তব্যে।হঠাৎ বাজ পড়লে সবাই যেমন চমকে যায়,রণিতের অভাবনীয় এই কথায় সকলের তাই অবস্থা।শুধু সত্তরোর্দ্ধ একজন মহিলা এখনো অবিচল।অসিত বাবু বললেন-'কি বলছো তুমি বাবা।এই কয়েকমাসের মধ্যে এমন কি ঘটল যার জন্য তুমি এতো বড় একটা কথা বললে।'
শেখর বাবুর অবস্থাও তথৈবচ।
-'কি বলছিস তুই রণিত?তোর মাথা ঠিক আছে তো?থাকতে পারবি না মানে!'
-'থাকতে পারব না মানে পারব না।'
তারপর অসিত বাবুকে উদ্দেশ্য করে বলে-'আপনার মেয়ে সহবত জানেনা।এত নীচ মানসিকতা ওর তা আগে বুঝিনি আমি।'
রাখীর দুচোখ দিয়ে অবিরাম অশ্রুকণা ঝরে চলেছে।শিখা তাকে আশ্বস্ত করে বলে-'কাঁদিস না মা।আমায় আগে সব শুনতে দে।'
রণিত একই রকম উত্তেজিত ভঙ্গিতে তার বাবাকে বলে-'জানো বাবা ও কি বলেছে।ও আমার সাথে শুয়ে পরিতৃপ্তি পাচ্ছে না।আমি ওকে সম্পূর্ণ আনন্দ দিতে পারছি না।'
আচমকা এমন মন্তব্যে সকলে হতবাক।রাখী শিখার ঘাড়ে মুখ লুকিয়ে নেয়।অসিত বাবু মাথা নীচু করে বসে।রণিত বলে চলে-'তোমার বৌমা আমায় বলছে ডাক্তার দেখাতে।আমি নাকি নপুংসক।'
শেখর আর সহ্য করতে পারেনা।সে বলে ওঠে-'চুপ কর তুই।কি নোংরা কথা বলছিস।'
অপর্ণা দেবী ভাষা হারিয়েছেন।এসবের মধ্যে হঠাৎ রিতা দেবী তার চেয়ার ছেড়ে উঠে এসে রাখীর চুলের মুঠি টেনে ধরে।তিনি প্রচন্ড রাগ ও অপমানে তাকে একটা চড় মারতে উদ্যত হন।ঠিক এইসময় গর্জে ওঠেন শিখা।রিতাকে থামিয়ে বলেন-'এ কি করছ বৌমা।মা হয়ে মেয়ের পাশে না দাঁড়িয়ে ওকে মারতে এসেছ।'
রিতা বলে-'মাসীমা ও আমার মেয়ে নয়।আজ ওর জন্য আমাকে আর ওর বাবাকে কতটা অপমানিত হতে হল বলুন তো।'
শিখা বলে-'কে তোমাদের অপমান করেছে এখানে?তোমরা রণিতের কথা ধরছো?যে ছেলে তার স্ত্রীকে যথেষ্ট সম্মান করতে পারেনা তার কথা ধরছো তুমি।'
শিখার কথা শুনে শেখর মুখ খুলল।সে বলল-'মা কি বলছো তুমি এসব?'
শেখরকে সজোরে একটা ধমক দিল শিখা।তারপর বলল-'তুই চুপ কর।তখন থেকে তোর ছেলে এতোগুলো বাজে কথা বলে গেল তখন পারলি না ওকে ধমকে চুপ করাতে।এখন আমায় চুপ করাচ্ছিস।'
ঘরের মধ্যে চলতে থাকা এই কথা কাটাকাটিতে অসিত বাবু ব্যাপক দোটানায় পড়লেন।কার হয়ে তিনি কথা বলবেন ভেবে পেলেন না।রণিত তার ঠাম্মিকে বলল-'তুমি এসব কি বলছো ঠাম্মি।সব জেনে শুনে....'
-'চুপ করো তুমি।একটাও আর কথা বলবে না।স্বামী স্ত্রীর সম্পর্কের মাহাত্ম্য তুমি বোঝো?বুঝলে নিজের বৌয়ের নামে এতোগুলো নোংরা কথা বলতে না।স্বামী স্ত্রীর সম্পর্কের সূক্ষ্ম রসায়ন অত সহজ নয় রণিত।এ সম্পর্ক জন্ম-জন্মান্তরের সম্পর্ক।'

বড়দের অনুবাদ গল্প


-'ঠাম্মি প্লিজ....'
-'না তোমায় এবার শুনতে হবে।কি এমন দোষ করেছে ও যে এতোগুলো কথা ওকে শুনতে হল।'
তারপর তার নিজের পুত্রবধূ ও রাখীর মাকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন-'আচ্ছা তোমরা মেয়ে হয়ে একটা মেয়ের মনের কষ্ট বুঝলে না।তোমরা কেমন মা।'
অপর্ণা শান্তস্বরে বলল-'মা রাখী যা করেছে তা কি সমর্থনযোগ্য?'
শিখা উত্তর দেন-'কেন সমর্থনযোগ্য না তা একবার বলো দেখি।ও ওর স্বামীকে মুখ ফুটে নিজের অন্তরের কথা জানিয়েছে।এতে দোষ কি?ও তো বাইরের কাউকে বলেনি বা এটা নিয়ে রণিতকে কটাক্ষ করেনি।স্বামীরও এটা কর্তব্য তার স্ত্রীয়ের ইচ্ছা,আকাঙ্খাকে মর্যাদা দেওয়া।তা না করে তোমার ছেলে নিজেদের একান্ত ব্যক্তিগত কথাকে সকলের সামনে এনে তাকে কলুষিত করেছে।আজ রাখী যদি অন্য কোনো অসদুপায় অবলম্বন করত তখন তাকে দোষ দিলে আমি ওকে সমর্থন করতাম না।'
অপর্ণা বলে-'তারমানে আপনি রাখীর কোনো দোষ দেখছেন না?'
-'না এক ফোঁটা না।প্রত্যেক মেয়ের তার স্বামীর আদর,সোহাগ নিয়ে ফ্যান্টাসি থাকে।সকলের সেই সাহস থাকে না যে তার অপরিপূর্ণতায় তা ব্যক্ত করার।কিন্তু নাতবৌয়ের সেই সাহস আছে।সে নির্দ্বিধায় তার স্বামীকে জানিয়েছে এ কথা।এটা নিয়ে রণিতের এতো রাগ করার আছে কি?'
শেখর আবার মুখ খোলে।তবে আবারো শিখার ধমকানি শুনে চুপ করে।শিখা বলে চলে-'আমিও তোমার শ্বশুর মশাইকে আমার অতৃপ্তির কথা জানিয়েছিলাম।কিন্তু এক মুহুর্তের জন্য উনি রাগ করেননি।আমার কথাকে সম্মান দেখিয়ে সেই সময় কলকাতার এক বড় ডাক্তার দেখান।তারপর চিকিৎসার ফলে তার সেই সমস্যা দূর হয়।তারপর খোকা আমার গর্ভে আসে।আর রণিতের পুরুষ সিংহের এতো গুমোর যে স্ত্রীর ঐ কথায় তার আঁতে ঘা লাগল।এতো ঘা লাগল যে রাখীর সঙ্গে থাকবে না জানিয়ে দিল।'
ঘরের বাকি সকলে মন্ত্রমুগ্ধ শ্রোতার মতো শিখার কথা শুনে চলেছে।কারোর মুখে কোনো রা নেই।রাখী চোখের জল মুছে এক দৃষ্টে চেয়ে আছে তার এই উদ্ধারকারীনীর দিকে।পৃথিবীতে তাহলে একজন মানুষ আছে যে তাকে বুঝল।মনে মনে ঈশ্বরকে ধন্যবাদ জানায় রাখী।শিখা দেবীর প্রতি তার শ্রদ্ধা বহুগুণে বেড়ে যায়।ওদিকে শিখা দেবীর প্রতিবাদী নারীসত্তা তখনও গর্জে চলেছে।রাখীর একটা হাত নিজের হাতের মধ্যে নিয়ে শিখা বলে-'রাখী এখান থেকে কোথাও যাবেনা।দাদুভাই তুমি ভুলে যেয়োনা এই বাড়ি আমার।আমার নাতবৌ আমার ঘরে আমার সাথে থাকবে।আমি ধন্য এমন সাহসিনী নাতবৌ পেয়ে।'
শেষ কথাটা সম্পূর্ণ করে শিখা রাখীকে নিয়ে নিজের ঘরে চলে যান।বাকি সকলে নীরবে এর ওর মুখ চাওয়া-চাওয়ি করে।রণিত রাগ করে নিজের ঘরে চলে যায়।সেই দিন থেকে রাখী শিখা দেবীর সাথে থাকতে শুরু করে।রাখী একদিন তাকে জিজ্ঞাসা করে-'ঠাম্মি এভাবে কি সমস্যার সমাধান হবে বলো।আমি বরং চলে যাই।'
শিখা বলে-'আমি যতদিন বেঁচে আছি ততদিন এই বাড়ি ছেড়ে যাবার নাম আর করবি না।'



রণিতের কাজে মন নেই।রোজই অফিসে কিছু না কিছু ভুল হচ্ছে।হঠাৎ মনে এক অপরাধবোধ ওকে কুরে কুরে খাচ্ছে।অর্ক সেটা বুঝতে পারছে।অর্ক রণিতের সহকর্মী।শুধু সহকর্মী বললে কম বলা হবে,অর্ক রণিতের খুব ভালো বন্ধু।অথচ রণিত এই ব্যাপারটা তাকে বলে উঠতে পারেনি।রণিত ভিতর ভিতর হয়তো নিজের এই দুর্বলতার ব্যাপারে অবগত ছিল।সেদিন লাঞ্চ টাইমে অর্ক ওকে জিজ্ঞাসা করে-'রণিত তোর কি হয়েছে বলতো?কদিন ধরে দেখছি কাজে মন নেই তোর।কাজে এত ভুল হচ্ছে আজকাল।এরকম তোর তো হয়না।'
রণিত কথাটা এড়িয়ে যেতে চায়।কিন্তু কোথাও এই কথাটা কাউকে বলতে চাইছিল ওর মন।তাই অর্ককে জানায় অফিস থেকে বেরিয়ে সব বলবে।অফিস থেকে বেরিয়ে বড় রাস্তার মোড়ে কফি সপে যায় ওরা।রণিত গড়গড় করে সব ঘটনার পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ দেয় অর্ককে।কিছুক্ষন সব শুনে অর্ক চুপ থাকে।তারপর ও মুখ খোলে।ও বলে-'তোর ঠাম্মিকে খুব দেখতে ইচ্ছে করছে রে।এরকম মহিলাও আছেন।আমি তো ভেবে পাচ্ছি না।'
অর্কের কথা রণিত বুঝতে পারেনা।সে বলে-'মানে...।'
-'মানে তো কিছু নেই এতে রণিত।রাখী ভুল কিছু তো বলেনি।একজন যোগ্য সঙ্গী হিসেবে যা করা উচিত তাই করেছে।তোর ঠাম্মি এটা বুঝে গেল আর তুই এটা বুঝলি না।'
রণিত বন্ধুর কথা শুনে থমকে যায়।সে হয়তো অন্য কিছু শোনার আশা করছিল।অর্ক বলে চলে-'তুই ভালো কোনো ডাক্তারের সাথে কনসাল্ট কর।আমি বলছি সব ঠিক হয়ে যাবে।রাখীকে দূরে সরিয়ে দিস না ভাই।'
রণিত কিছু বলেনা।নিজের কফিটা শেষ করে বাড়ির পথ ধরে।বাড়ি এসে সেদিন রাতে কিছু খায়না রণিত।রাখী শিখার ঘর থেকে সব খেয়াল করে।কিন্তু শিখা দেবীর নির্দেশে কাছে আসে না।সারারাত দুচোখের পাতা এক করতে পারেনা রণিত।এই চরম সত্য মেনে নিতে খুব কষ্ট হয় তার।শেষ রাতে চোখটা একটু লেগে আসে ওর।ঘুম ভেঙে ব্রেকফাষ্ট না করে অফিস চলে যায় সে।

অর্ক তখনো অফিসে আসেনি।রণিত ওর জন্য অপেক্ষা করতে থাকে।অর্ককে অফিসে ঢুকতে দেখে ছুটে যায় তার কাছে।রণিত বলে-'একটা উপকার করবি ভাই?'
-'কি বল?' 
-'একটু আগে একজন ডাক্তারকে ফোন করেছিলাম।দুপুরে ওনার চেম্বারে যেতে বলল।তুই যাবি আমার সাথে?'
অর্কর মুখে হাসি ফুটে ওঠে।সে বলে-'দেখ সে যেতে আমার অসুবিধা নেই।তবে আমি বলি তুই রাখীকে সঙ্গে নিয়ে যা।ও ভীষন খুশী হবে।'
রণিত জানায়-'আমিও তাই চাই।তবে যা ব্যবহার করেছি ওর সাথে,তারপর আর কি যেতে চাইবে।'
মুচকি হেসে অর্ক বলে-'একবার ফোনটা করেই দেখনা।'
অর্কর কথায় ফোনটা করে রণিত।ওপার থেকে রাখী হ্যালো বললে রণিত তাকে সবটা জানায়।রাখীর মুখের ভাষা আটকে গেছে।সে ঝরঝর করে কাঁদতে থাকে।শিখা ওর কান্না দেখে কারণ জানতে চাইলে রাখী সব জানায়।শিখার মুখে প্রশান্তির হাসি ফুটে ওঠে।দুপুরে সানন্দে রাখী রণিতের সাথে ডাক্তারের চেম্বারে যায়।

রণিত আর রাখী এখন সুখে সংসার করছে।তাদের সম্পর্কের রসায়ন জোরদার হয়ে উঠেছে।শীতল বরফ গলে গিয়ে নতুন উত্তাপের আঁচে ওরা একে ওপরের অনেক কাছে এসে গেছে।এমন সময় রাখী একদিন বুঝতে পারে তার শরীরে কিছু পরিবর্তন ঘটছে।তার শরীরের অন্তঃস্থলে নতুন প্রাণের সঞ্চার হয়েছে।প্রচন্ড খুশীতে নাচতে নাচতে রাখী প্রথমেই ছুটে যায় শিখার কাছে।
-'ঠাম্মি আমি মা হতে চলেছি।'
শিখা তো প্রথমে নিজের কানকে বিশ্বাস করতে পারে না।
রাখিকে বুকে জড়িয়ে ধরে বলে-'আশীর্বাদ করি মা খুব সুখী হো জীবনে।সবাইকে নিয়ে খুব ভালো থাকিস।'
রাখী বলে-'থাকবো ঠাম্মি।তবে কি জানোতো আধুনিকতার মোড়কে সাজানো এই দুনিয়ায় আধুনিক মনস্ক মানুষের সংখ্যা খুব কম।কিন্তু তুমি হলে একজন সর্বার্থে আধুনিকা।'

-------------------------------সমাপ্ত------------------------------



প্রিয় গল্প পড়তে নিয়মিত ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইটে। 
ভালো থাকুন, ভালোবাসায় থাকুন। ..
Thank You, Visit Again...

Tags - Bangla Golpo, Bengali Story, Boroder Golpo

বড়দের গল্প - Boroder Golpo (আধুনিকা) বড়দের গল্প - Boroder Golpo (আধুনিকা) Reviewed by Bongconnection Original Published on September 11, 2020 Rating: 5

No comments:

Wikipedia

Search results

Powered by Blogger.