ভালোবাসা






অনেকদিন আগে ইংরেজ ইতিহাসবিদ টমাস ফুলারের একটা লেখা পড়েছিলাম , সেখানে কিছু লেখা ছিলো । আজ হঠাৎ সেটা নিয়ে কিছু লিখতে বসেছি, টমাস ফুলের  যখন একবার কারো প্রেমে পড়েছিলেন তখন লিখেছিলেন,“ভালোবাসা পাওয়ার চাইতে ভালোবাসা দেয়াতেই বেশি আনন্দ।”
ব্যাপারটা অনেকটা সত্য!
.
মাঝেমাঝে আমরা সবাই খুব অভিমান করে বসে থাকি কেন সে ভালোবাসেনা।কেন সে আমাদের উপর মুগ্ধ হয়না। কেন সে আমাকে ঠিকমতো সময় দেয়না বা কথা বলেন । কেন সে সবার সামনে আমাদের ভালোবাসার মজা নেয়।সে তো চাইলেই পারে একটু ভালোবাসতে।সে তো চাইলেই পারে আমাদের মনমতো সাজতে। সেতো চাইলেই পারে সবার সামনে ভালোবাসার কথা অন্যদের মতো বলতে !
.
ভালোবাসায় সবচেয়ে সুন্দর ব্যাপার হচ্ছে তার ভালোবাসার অপেক্ষা না করে তাকে ভালোবেসে যাওয়া।ভালোবাসার দুটো টার্ম আছে।তার মধ্যে একটা একপাক্ষিক ভালোবাসা আরেকটা হচ্ছে দুজন দুজনকে ভালোবাসা।সে আমাকে ভালোবাসি বলছে,আমিও তাকে অহরহ ভালোবাসি বলে যাচ্ছি কিন্তু দিনশেষে কেউ ই সন্তুষ্ট না আমরা।আমাদের দুজনের ই মনে হচ্ছে সে হয়তো আমাকে খুশি করার জন্য ভালোবাসছে।হয়তো ভালোবাসেনা।মাঝে মাঝে মনে হয় , হয়তো কোন একদিন সে হাতটা ছেড়ে দেবে । তখন আমার কি হবে!!
আমি তো মরেই যাব।আমি ঘুমের ওষুধ খেয়ে সুইসাইড করে ফেলবো।সে তো কাউকেই বলতে চায়না তার ভালোবাসা আমি।তার মানে তো সে ঠকাচ্ছে।একসাথে চার পাঁচটা রিলেশন কন্টিনিউ করছে ।সে প্রচন্ড রকমের সুবিধাবাজ!

এটা ভালোবাসা না।এটা হচ্ছে কোনো প্রকারে ভেলায় ভেসে ভেসে আইলাভিউ, বা আইলাভিউ টু বলা।ভালোবাসার মানুষের বিশ্বাস থাকতে হয় প্রচুর।এতটা বিশ্বাস যার কোনো শেষ নেই।তাকে বুঝিয়ে দিতে হয়,
-দেখো তুমি আমাকে ভালোবাসো। আর নাই বা ভালোবাসো আমি নিজেকে কখনো শেষ করবোনা।হয়তো তুমি ছেড়ে যাবে।হয়তো তোমার জন্য আমার শেষ বিকেলে মন খারাপ হবে।হয়তো কখনো কখনো অন্যমনস্ক হয়ে যাব।সাব কনশাস মাইন্ড হয়তো বলবে,তোমাকে ছাড়া আমার চলবেনা।কিন্তু,সুর্য একবার ডুবে গেলে একটা সময় সে উঠবেই।হয়তো সে দুই ঘন্টা দেরি করবে।কিন্তু সে উঠবেই।হয়তো তাকে ছাড়া সব স্বপ্ন ভেঙে যাবে।
কিন্তু একদিন কেউ আসবে যে স্বপ্ন দেখাবেনা।সে বলবে না এমন করবো।ওমন করবো।সে স্বপ্ন না দেখিয়েই সব স্বপ্ন পূরণ করে যাবে।অথচ তখন আপনি ভাববেন সে কি মন পড়তে পারে?
.
দীপিকা যখন রানবীর কাপুরের সাথে রিলেশনে ছিলো তখন তার ঘাড়ে রনবীরের নামে ট্যাটু করেছিলো।কিন্তু খুব বাজেভাবে ঠকে যাবার পর ও সে ভেঙে পড়েনি!হার্ডওয়ার্ক করে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছে বিটাউনে।তার বিধ্বস্ত সেই মনের মেরামতের দায়িত্ব নিয়েছিলো আরেক রনবীর।তাদের রিলেশনের অনেক পরেও দীপিকার ঘাড়ের ট্যাটু নিয়ে টু শব্দ করে নি রনবীর।শুধু বলেছে,“আমি তোমাকে ভালোবাসি”।হ্যাঁ অবশেষে তারা বিয়ে করেছে।বিয়ের পর পর সে ট্যাটু ও গায়েব !এর কারণ কিন্তু বিশ্বাস!!
.
নিজেকে শেষ করে দেবার মতো সহজ কাজ পৃথিবীতে আর একটাও নেই।আপনার সাড়ে ছাপ্পানো কেজি দেহের ওজনের সাথে ডিপ্রেশন,অভিমান,রাগ,ক্ষোভের বাড়তি চুয়াল্লিশ কেজি নিয়ে সামনে এগিয়ে চলার নাম ই জীবন!
জীবন মাত্র ই ভালোবাসা না।জীবনের মানে অনেক!
.মাঝে মাঝে জীবনটা একদম চলতে চায়না , থেমে পড়ে, মনে হয় এখানেই সব শেষ । তবুও আমরা চালিয়ে নেই , তবুও আমরা মানিয়ে নেই ।
কেন জানেন ? কারণ জীবন তো একটাই ..!

তার কথা মনে করে খুব বেশি কষ্ট হলে শাহরুখ খানের একটা ডায়লগের কথা মনে করবেন,
-অথচ তাকে ভালোবাসার জন্য আমার তাকেই দরকার নেই!



কেমন লাগলো জানাবেন নীচের কমেন্ট সেকশনে ।
ভালো লাগলে শেয়ার করুন , ..


ধন্যবাদ । 

পাশের বেল আইকনটিতে টাচ করে সাস্ক্রাইব করে রাখুন , আমাদের লেখা সবার আগে পরতে , নোটিফিকেশন পেতে ...



অপেক্ষার শেষ প্রহরে



ভালোবাসা ভালোবাসা Reviewed by Bongconnection Original Published on November 26, 2018 Rating: 5

No comments:

Wikipedia

Search results

Powered by Blogger.